মুখে গামছা বেঁধে স্কুলছাত্রীকে ধর্ষণ, গ্রেফতার ১

প্রকাশিত: ২:০৪ অপরাহ্ণ, অক্টোবর ২২, ২০২০ | আপডেট: ২:০৪:অপরাহ্ণ, অক্টোবর ২২, ২০২০

আশরাফুল ইসলাম গাইবান্ধা ::সারাদেশ যখন ধর্ষকের বিরুদ্ধে সোচ্চার ঠিক সেই সময়েও গাইবান্ধা জেলায় কিছুতেই থামছে ধর্ষন ও বলৎকারের ঘটনা । প্রতিনিয়ত জেলার বিভিন্ন এলাকায় এমন অমানুবিক কর্মকান্ডের ফলে জেলা জুড়ে মানবিক ও সামাজিক অবক্ষয় ব্যাপকভাবে বৃদ্ধি পাওয়ায় সচেতন মহল ও সাধারণ মানুষ আজ নির্বাক, চিন্তিত অভিভাবক মহল ।

গাইবান্ধায় এবার প্রতিবেশী চাচা সম্পর্কে এক লম্পটের হাতে ধর্ষিত হয়েছে গাইবান্ধা সদর উপজেলায় এক স্কুলছাত্রী । ধর্ষনের সময় মুখে গামছা বেঁধে ধর্ষণের অভিযোগে দায়ের হওয়া মামলার আসামি ধর্ষক লিয়ন মিয়াকে (২৭) কে ঘটনার ২৪ ঘন্টার মধ্যে পুলিশ অভিযান চালিয়ে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। গতকাল ২১ অক্টোবর বুধবার দিনগত রাতে উপজেলার খোলাহাটি এলাকা থেকে তাকে গ্রেফতার করা হয়। লিয়ন গাইবান্ধা সদর উপজেলার খামার টেংগরজানী গ্রামের সাহেব মিয়ার ছেলে। গাইবান্ধা সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকতা (ওসি) খান মো. শাহরিয়ার বলেন, ওই ঘটনায় ভুক্তভোগী স্কুলছাত্রীর বাবা বাদী হয়ে গতকাল বুধবার সকালে থানায় মামলা দায়ের করেন। এরপর থেকেই অভিযুক্ত ধর্ষক লিয়নকে গ্রেফতারে অভিযান শুরু করে পুলিশ। পরে বুধবার দিনগত রাত ১২টার দিকে উপজেলার খোলাহাটি এলাকা থেকে তাকে গ্রেফতার করা হয়। ২২ অক্টোবর বৃহস্পতিবার সকালে লিয়নকে বিজ্ঞ আদালতে পাঠানো হয়।

এর আগে, মঙ্গলবার (২০ অক্টোবর) রাতে গাইবান্ধা সদর উপজেলার খামার টেংগরজানী এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। অভিযুক্ত ধর্ষক লিয়ন ওই স্কুলছাত্রীর সম্পর্কে চাচা। ভুক্তভোগী পরিবার ও মামলার বিবরণে জানা যায়, প্রতিবেশী সাহেব মিয়ার ছেলে বখাটে লিয়ন সম্পর্কে চাচা হলেও দীর্ঘদিন থেকে ওই স্কুলছাত্রীকে বিয়ের প্রলোভনে বিভিন্ন সময় অনৈতিক প্রস্তাব দিয়ে আসছিল। লিয়নের পরিবারকে বিষয়টি একাধিকবার জানানো হলেও তারা কোনো ব্যবস্থা নেয়নি। মঙ্গলবার রাতে স্কুলছাত্রী পাশের বাড়িতে টেলিভিশন দেখতে যায়। সেখানে রাত ৮টার দিকে সে প্রকৃতির ডাকে সাড়া দিতে ঘরের বাহিরে বের হলে ওৎ পেতে থাকা লিয়ন তার মুখ চেপে ধরে পাশ্ববর্তী মামুন মিয়ার একটি নির্মাণাধীন ঘরে নিয়ে তাকে ধর্ষণ করেন। এ সময় স্কুলছাত্রী চিৎকার করতে চাইলে তার মুখ গামছা দিয়ে বেঁধে ফেলেন লিয়ন। ধর্ষণের পর এ ঘটনা কাউকে না জানালে তাকে হত্যার হুমকি দিয়ে লিয়ন পালিয়ে যান। এরপর স্কুলছাত্রী রক্তাক্ত অবস্থায় বাড়ি ফিরে কান্নাকাটি করলে ঘটনাটি জানতে পারে তার পরিবার। পরে তাকে গাইবান্ধা সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।

অপরদিকে গাইবান্ধা জেলার সাদুল্লাপুর উপজেলায় বলৎকারে অসুস্থ এক ছেলেশিশুকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।এ ঘটনায় শাকিল শেখ (২০) নামে একজনের বিরুদ্ধে গতকাল ২১ অক্টোবর বুধবার মামলা হয়েছে বলে সাদুল্লাপুর থানার ওসি মাসুদ রানা জানান। অভিযুক্ত শাকিল সাদুল্লাপুর উপজেলার ভাতগ্রাম ইউনিয়নের টিয়াগাছা পশ্চিমপাড়ার মো. মাজেদ শেখের ছেলে।ওসি মাসুদ মামলার নথির বরাতে বলেন, শাকিল মঙ্গলবার সন্ধ্যার আগে বাড়ির সামনে থেকে ১০ বছরের এক ছেলেশিশুকে ফুঁসলিয়ে সুপারি কুড়ানোর কথা বলে বাগানে নিয়ে বলৎকার করেন। পরে শিশুটি অসুস্থ হয়ে পড়ে। তাকে গাইবান্ধা সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। ওসি বলেন, এ ঘটনায় তাদের থানায় মামলা হয়েছে। শাকিলকে গ্রেফতার করতে পুলিশ অভিযান অব্যাহত রেখেছে।