আজ চোরেরা একত্র হয়েছে: নিক্সন চৌধুরী

প্রকাশিত: ৭:১৪ অপরাহ্ণ, অক্টোবর ২৪, ২০২০ | আপডেট: ৭:১৪:অপরাহ্ণ, অক্টোবর ২৪, ২০২০

এলটিএন ফরিদপুর।ফরিদপুরের জেলা প্রশাসনের কর্মকর্তাদের গালি দিয়ে সম্প্রতি মামলার আসামি হয়েছিলেন ফরিদপুর-৪ আসনের স্বতন্ত্র সাংসদ মুজিবর রহমান ওরফে নিক্সন চৌধুরী। শুক্রবার ফরিদপুরের চরভদ্রাসনে এক স্মরণসভায় এবার প্রশাসনের কর্মকর্তাদের দুর্নীতি নিয়ে সরব হলেন এই সাংসদ। তিনি বলেন, ‘আজ ভূমি অফিসে যান টাকা ছাড়া কাজ হবে না। উপজেলায় যান ঘুষ ছাড়া কাজ হবে না। ১০ টাকার কাজ করতে গেলে ৫ টাকাই চোরেরা চুরি কইরা রাইখা দেয়। শুধু এই থানায় নয় সারা দেশেই আছে চোরেরা। … আজ চোরেরা একত্র হয়েছে, চোরের সমিতি।’

প্রসঙ্গত, ১০ অক্টোবর চরভদ্রাসনে উপজেলা পরিষদের উপনির্বাচনের দিন ইউএনওকে ফোন করে এক নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেটকে গালাগাল এবং জেলা প্রশাসককে রাজাকার বলে আলোচনায় আসেন নিক্সন চৌধুরী। এ ঘটনায় ১৫ অক্টোবর চরভদ্রাসন থানায় মামলা করে নির্বাচন কমিশন (ইসি)। ইসির করা মামলায় নিক্সন চৌধুরীর বিরুদ্ধে উপনির্বাচনে আচরণবিধি লঙ্ঘন, সরকারি কর্মকর্তাদের ভয়ভীতি প্রদর্শন, গালাগাল ও হুমকির অভিযোগ আনা হয়।

শুক্রবার বিকেলে চরভদ্রাসন আওয়ামী লীগের কার্যালয়ের সামনে প্রয়াত উপজেলা চেয়ারম্যান মোশারফ হোসেনের প্রথম মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে এ স্মরণসভার আয়োজন করে উপজেলা আওয়ামী লীগ। সেখানে প্রধান অতিথি হিসেবে বক্তব্য দিতে গিয়ে সাংসদ নিক্সন বলেন, উন্নয়ন মানে শুধু রাস্তা, কালভার্ট, ভবন নির্মাণ না। সরকারি অফিসে জনগণের কাজকে সহজ ও স্বচ্ছ করাও উন্নয়ন। এ সময় তিনি প্রধানমন্ত্রীর কাছে এসব অফিসের দুর্নীতির বিচার চাইলে উপস্থিত হাজারো জনতা ‘বিচার চাই বিচার চাই’ স্লোগান দেন।

নিক্সন চৌধুরী বলেন, ‘মামলা দিয়া, দড়ি দিয়া ফাঁসি দিয়া আমারে ঠেকানো যাবে না। নিক্সন চৌধুরী ওপরে আল্লাহ ও নিচে জনগণ ছাড়া আর কাউকে ভয় পায় না। লড়াই হবে, জান চাইলা যাবে তবু লড়াই হবে। এই লড়াইয়ে চরভদ্রাসন ভাঙ্গার জনগণ সারা দেশকে দেখায় দেবে, এরা বীরের জাতি, সংগ্রামের জাতি, মুক্তিযোদ্ধার জাতি, এরা কাউকে ভয় পায় না।’

চরভদ্রাসন উপজেলা আওয়ামী লীগের সাবেক যুগ্ম সম্পাদক আনোয়ার আলী মোল্লার সভাপতিত্বে এ সভায় আরও উপস্থিত ছিলেন সদরপুর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান কাজী শফিকুর রহমান, ভাঙ্গা উপজেলা পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান শাহাদত হোসেন, চরভদ্রাসন থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) নাজনীন খানম প্রমুখ।