করোনা পরীক্ষা নিয়ে মুগদা হাসপাতালে তুলকালাম

প্রকাশিত: ৩:৫৬ অপরাহ্ণ, জুলাই ৩, ২০২০ | আপডেট: ৩:৫৬:অপরাহ্ণ, জুলাই ৩, ২০২০

লন্ডন টাইমস নিউজ। সূত্র বহুমাত্রিক।করোনা পরীক্ষার নমুনা দিতে লাইনে দাঁড়ানো রোগীকে মারধরের ছবি তুলতে যাওয়ায় মুগদা জেনারেল হাসপাতালে দেশ রূপান্তরের ফটো সাংবাদিক রুবেল রশীদের ওপর হামলা চালিয়েছেন সেখানকার আনসার সদস্যরা। তারা ফটো সাংবাদিকের ক্যামেরাও ভেঙে ফেলে।

শুক্রবার বেলা সাড়ে ১১টার দিকে হাসপাতাল চত্বরে এ হামলার ঘটনা ঘটে। হামলার শিকার রুবেল রশীদ বলেন, হাসপাতালে কোভিড-১৯ টেস্টের জন্য শুক্রবার ৪০ জনকে টিকিট দেওয়া হয়।কিন্তু ৩৪ জনের পরীক্ষা করেই আনসার সদস্যরা বলেন আজ পরীক্ষা শেষ। তখন ৩৬ নম্বর সিরিয়ালে দাঁড়িয়ে থাকা শাওন হোসেন নামের এক যুবকের সঙ্গে আনসার সদস্যদের তর্কাতর্কি হয়। একপর্যায়ে আনসাররা তার গায়ে হাত তোলেন।

রুবেল রশীদ বলেন, এ ঘটনার ছবি তুলতে যান বাংলাদেশ প্রতিদিনের আলোকচিত্রী জয়িতা রায়। এ সময় আনসার সদস্যরা তাকে থাপ্পড় দিতে এলে জয়িতা সরে পড়েন।রুবেল রশীদ আরও বলেন, ‘এরপর ঘটনার ছবি তুলতে আমি এগিয়ে যাই। তখন আনসার সদস্যরা থাপ্পড় মেরে আমার ক্যামেরার ফিল্টার ভেঙে ফেলে। ’

রুবেল রশীদ বলেন, ‘এ সময় আনসার সদস্যরা সাংবাদিকদের গালাগাল করতে থাকেন এবং বেঁধে রাখার হুমকি দেন। একপর্যায়ে তারা বলেন- এখানে সাংবাদিকদের রংবাজি চলবে না। আমাদের রংবাজি চলবে। ’
এদিকে এই হাসপাতালে প্রায় প্রতিদিনই করোনা পরীক্ষা করাতে এসে হয়রানির শিকার হচ্ছে রোগীরা। গত ১ জুলাইও আনসার সদস্যদের সাথে কথা কাটাকাটি হয় সাংবাদিকদের।

এ প্রসঙ্গে সংবাদকর্মী হালিমা খাতুন জানান, গত ১ জুলাই স্বামীকে নিয়ে ভোর বেলায় লাইনে দাঁড়ান। দীর্ঘ সময় রোদ ও গরমে অসুস্থ হয়ে পড়েন তার স্বামী মোস্তফা জামান। পরেও অন্য সাংবাদিকরা এগিয়ে এসে সহযোগিতার হাত বাড়িয়ে দেন। সাংবাদিকদের অনুরোধের পর মোস্তফা জামানের করোনা পরীক্ষার নমুনা সংগ্রহ করেন ডাক্তাররা।

সাংবাদিক হালিমা খাতুন জানান, প্রতিদিনই করোনা পরীক্ষার নমুনা দিতে এসে সকল শ্রেণী-পেশার মানুষ চরম হয়রানির শিকার হচ্ছেন। আর হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ ও আনসার বাহিনীর অনিয়ম, দুর্নীতি ক্রমেই বেড়ে চলছে। ফলে এই মুহূর্তে সরকারের উচিত মুগদা হাসপাতালসহ করোনা পরীক্ষার নমুনা সংগ্রহকারী সকল হাসপাতালে অবিলম্বে সেনা মোতায়েন করা।