বিশ্বের সব দেশের বাহিনীর চেয়ে ভারতীয় সেনারা শক্তিশালী: মোদির দাবি

প্রকাশিত: ১০:৪৯ অপরাহ্ণ, জুলাই ৩, ২০২০ | আপডেট: ১০:৪৯:অপরাহ্ণ, জুলাই ৩, ২০২০

লন্ডন টাইমস নিউজ।ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী বলেছেন, ‘দেশরক্ষায় সেনারা যে পরাক্রম দেখিয়েছে তাতে গোটা বিশ্বে ভারতের শক্তি প্রমাণিত। সেনাবাহিনীর উপরে সমগ্র ভারতবাসীর আস্থা রয়েছে। সেনাদের বীরত্বই আত্মনির্ভর ভারত গঠনের সংকল্প আরও দৃঢ় করছে।’ তিনি আজ (শুক্রবার) ভারত-চীন সীমান্তের নিমুতে এক সামরিক সমাবেশে চীনের নাম উল্লেখ না করে ওই মন্তব্য করেন।

তিনি বলেন, ‘শত্রুরা ভারতীয় সেনার আগুন এবং আক্রোশ দেখেছে। আপনারা যেখানে মোতায়েন আছেন, তার থেকেও আপনাদের সাহস বেশি। দুর্বলরা কোনওদিনই শান্তি রক্ষার উদ্যোগ নিতে পারে না। আপনাদের ইচ্ছাশক্তি হিমালয়ের মত দৃঢ়। গোটা দেশ আপনাদের নিয়ে গর্বিত।’

চীনকে ইঙ্গিত করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘সম্প্রসারণবাদের দিন শেষ। এটা উন্নয়নের কাল। সম্প্রসারণবাদী শক্তিগুলো হয় হেরে গিয়েছে অথবা পিছু হঠতে বাধ্য হয়েছে। ইতিহাস এর সাক্ষী।’

এদিকে, প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির লাদাখ সফরের দিনেই আজ চীনা পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র ঝাও লিঝিয়ান বলেন, ‘ভারত ও চীনের মধ্যে যোগাযোগ রয়েছে। উত্তেজনা কমানোর উদ্দেশ্যে সামরিক ও কূটনৈতিক স্তরে আলোচনা চলছে। পরিস্থিতি ফের নতুন গতি পেতে পারে এমন কোনও অ্যাকশন থেকে উভয়পক্ষেরই বিরত থাকা উচিত।’ সম্প্রতি লাদাখে ভারত ও চীনা বাহিনীর মধ্যে রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষে এক কর্নেলসহ ২০ ভারতীয় সেনা জওয়ান নিহত হয়।

প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির লাদাখ সফর

প্রধানমন্ত্রী আজ নিহত ওই সেনা জওয়ানদের প্রতি শ্রদ্ধা জানিয়ে বলেন, ‘ভারত মায়ের শত্রুরা আপনাদের প্রত্যাঘাত দেখেছে। এই পরিস্থিতিতে আপনারা নিজেদের সেরাটা দিয়েছেন। দুর্বলতা শান্তি আনতে পারে না। সাহসীরা পারে। আপনারা সেটাই করে দেখাচ্ছেন। বিশ্বের অন্য সব দেশের বাহিনীর চেয়ে ভারতীয় সেনারা শক্তিশালী সেটা প্রমাণ হয়েছে। আমি আপনাদের, প্রণাম করতে চাই। যাঁরা দেশের জন্য প্রাণ দিয়েছে তাঁদের নমস্কার করতে চাই। লাদাখের সব নদী, সব স্রোত, সব নুড়ি জানে এটা ভারতের অবিচ্ছেদ্য অংশ।’ ভারতীয় সেনারা লাদাখ ষড়যন্ত্র ব্যর্থ করেছে। লাদাখ দেশের মাথা, সম্মানের প্রতীক বলেও প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি মন্তব্য করেন।

কংগ্রেসের মুখপাত্র রণদীপ সিং সূর্যেওয়ালা

এদিকে, প্রধানমন্ত্রীর বক্তব্যে চীনের নাম উল্লেখ না থাকার অভিযোগে তাঁকে কটাক্ষ করেছেন, কংগ্রেসের মুখপাত্র রণদীপ সিং সূর্যেওয়ালা। তিনি বলেন, গত ২৮ মে ‘মন কী বাত’(মনের কথা) অনুষ্ঠানে চীনের নাম নেই। ৩০ মে দেশবাসীর উদ্দেশ্যে দেওয়া বার্তায় চীনের নাম নেই। ৩ জুলাই সেনাদের সঙ্গে কথা বলার সময়ে চীনের নাম নেই। চীনের নাম এড়িয়ে যাচ্ছেন কেন?’

‘শক্তিশালী ভারতের প্রধানমন্ত্রী এত দুর্বল কেন? চীনের সঙ্গে চোখে চোখ রেখে কবে কথা হবে’ বলেও কংগ্রেস নেতা রণদীপ সিং সূর্যেওয়ালা মন্তব্য করেন।

রাজস্থানের মুখ্যমন্ত্রী ও কংগ্রেসের সিনিয়র নেতা অশোক গেহলট বলেছেন, ‘ভারত সুপার পাওয়ার কিন্তু দেশের প্রধানমন্ত্রী চীনের নামও নেন না। চীন আমাদের মাথায় বসে আছে জেনেও কী কারণে প্রধানমন্ত্রীর মুখ থেকে ‘চীন’ শব্দটি বের হয় না?  প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির উচিত দেশের সীমান্তের পরিস্থিতির কথা জানানো।