বাংলাদেশে যাত্রা শুরু করলো ভিস্তারা এয়ারলাইন্স

প্রকাশিত: ৪:০৪ অপরাহ্ণ, নভেম্বর ৫, ২০২০ | আপডেট: ৪:০৪:অপরাহ্ণ, নভেম্বর ৫, ২০২০

এলটিএন ঢাকা।ঢাকা থেকে ফ্লাইট পরিচালনার মাধ্যমে আনুষ্ঠানিকভাবে বাংলাদেশে কার্যক্রম শুরু করেছে ভারতের ভিস্তারা এয়ারলাইন্স।

বৃহস্পতিবার (৫ নভেম্বর) দুপুরে হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে ভিস্তারার ফ্লাইট চলাচলের উদ্বোধন করেন বেসামরিক বিমান চলাচল ও পর্যটন প্রতিমন্ত্রী অ্যাডভোকেট মাহবুব আলী।এ সময় উপস্থিত ছিলেন ভারতীয় হাইকমিশনার বিক্রম কুমার দোরাইস্বামী, বেসামরিক বিমান চলাচল কর্তৃপক্ষের (বেবিচক) চেয়ারম্যান এয়ার ভাইস মার্শাল মো. মফিদুর রহমান, বেবিচক মেম্বার (অপস) এয়ার কমোডর মো. খালিদ হোসেন, ভিস্তারার প্রতিনিধি কাইজাদ পেসি পোস্টওয়াল্লা, ঢাকার জিএসএ মাস ট্রাভেলস অ্যান্ড ট্যুরসের কর্ণধার সোহাগ হোসেন ও বিমানবন্দর পরিচালক গ্রুপ ক্যাপ্টেন এএইচএস তৌহিদ উল আহসান।

ভারতের সঙ্গে বাংলাদেশের এয়ার বাবল চুক্তির আওতায় আপাতত সপ্তাহে দুদিন রবি ও বৃহস্পতিবার দুটি ফ্লাইট চলাচল করবে।

বৃহস্পতিবার এয়ারলাইন্সের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে বিমান প্রতিমন্ত্রী বলেন, বাংলাদেশ ও ভারতের বন্ধুত্ব বর্তমানে একটি অনন্য উচ্চতায় রয়েছে, যা অন্য প্রতিবেশী দেশগুলোর জন্য মডেল হিসেবে কাজ করবে। বর্তমান বিশ্বের পরিস্থিতিতে ভিস্তারার ফ্লাইট চালুর বিষয়টি এরই একটি উদাহরণ। আমি আশা করি ভিস্তারা এয়ারলাইন্স এবং যাত্রীরা সবধরনের স্বাস্থ্যবিধি মেনে নিরাপদভাবে যাতায়াত করবেন।

অনুষ্ঠানে ভারতীয় হাইকমিশনার বিক্রম কুমার দোরাইস্বামী বলেন, বর্তমানে মহামারির সময় বাংলাদেশ ভারতের মধ্যকার এয়ার বাবল প্যাকেজের মধ্যে ফ্লাইট পরিচালনার মতো সাহসী সিদ্ধান্ত নেয়ায় আমি ভিস্তারাকে ধন্যবাদ জানাই। আমি আশা করছি ভিস্তারা যাত্রীদের নিরাপদ ও স্বাস্থ্যসম্মত ফ্লাইট নিশ্চিত করবে।বেবিচক চেয়ারম্যান এয়ার ভাইস মার্শাল মো. মফিদুর রহমান বলেন, ভিস্তারার ফ্লাইট পরিচালনার মাধ্যমে বাংলাদেশের নেটওয়ার্কে আরেকটি এয়ারলাইন্স যুক্ত হলো। এটি আমাদের জন্য অত্যন্ত আনন্দের ব্যাপার।

এর আগে গত ২৮ অক্টোবর থেকে দীর্ঘদিন বন্ধ থাকা বাংলাদেশ-ভারত ফ্লাইট চলাচল শুরু হয়।

এয়ার বাবল চুক্তির অধীনে ভিস্তারা ছাড়াও ভারতের এয়ার ইন্ডিয়া, ইন্ডিগো, স্পাইসজেট এবং গোএয়ার ফ্লাইট পরিচালনার অনুমতি পেয়েছে। বাংলাদেশ থেকে বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্স, ইউএস-বাংলা ও নভোএয়ার ফ্লাইট চালাবে।

বর্তমানে বাংলাদেশি যাত্রীদের বিজনেস (ব্যবসায়িক ভিসা), মেডিকেল (মেডিকেল এটেনডেন্ট ভিসা), স্টুডেন্ট (শিক্ষার্থী), রিসার্চ (গবেষণা), কনফারেন্স (সম্মেলন), এমপ্লয়মেন্ট (কর্মসংস্থান), ট্রেনিং (প্রশিক্ষণ) ক্যাটাগরিতে ভিসা দিচ্ছে ভারত।

করোনাভাইরাস প্রাদুর্ভাবের কারণে গত ২১ থেকে ৩১ মার্চ পর্যন্ত যুক্তরাজ্য, চীন, হংকং, থাইল্যান্ড ছাড়া সব দেশের সঙ্গে এবং অভ্যন্তরীণ রুটে যাত্রীবাহী ফ্লাইট চলাচল বন্ধের ঘোষণা দিয়েছিল বেবিচক। এরপর আরেকটি আদেশে চীন বাদে সব দেশের সঙ্গে ৭ এপ্রিল পর্যন্ত বিমান চলাচলে নিষেধাজ্ঞা জারি করা হয়।

এ নিষেধাজ্ঞা সরকারি সাধারণ ছুটির সঙ্গে সমন্বয় করে পর্যায়ক্রমে ১৪ এপ্রিল, ৩০ এপ্রিল, ৭ মে, ১৬ মে, ৩০ মে এবং ১৫ জুন পর্যন্ত বাড়ানো হয়। ১৬ জুন থেকে প্রথমবারের মতো ঢাকা থেকে লন্ডন এবং কাতার রুটে ফ্লাইট চলাচলের অনুমতি দেয়া হয়। এরই ধারাবাহিকতায় অন্যান্য দেশের ফ্লাইটগুলো চালু করা হচ্ছে।