ইসিডি টক শো-করোনাকালে শিশুর সুরক্ষা ও বিকাশে একযোগে কাজ করার আহবান

প্রকাশিত: ১:৩৮ অপরাহ্ণ, জুলাই ৭, ২০২০ | আপডেট: ১:৩৮:অপরাহ্ণ, জুলাই ৭, ২০২০

ওবায়দুল ফাত্তাহ তানভীর।কোভিড-১৯ সংক্রমণে বিশেষভাবে নাজুক পরিস্থিতির মধ্যে থাকা আমাদের শিশুদের জাগতিক ও মনোজাগতিক সুরক্ষা ও বিকাশে করণীয় নির্ধারণে বাংলাদেশ ইসিডি নেটওয়ার্ক এবং সিনারগোসের উদ্যোগে শুক্রবার, ৩ জুলাই এবং শনিবার, ৪ জুলাই রাত সাড়ে ৮টা থেকে ৯টা পর্যন্ত জনপ্রিয় টেলিভিশন চ্যানেল-২৪ এর নিয়মিত লাইভ টক শো করোনা নিউজ লাইন-এ সরকারি এবং বেসরকারি সংস্থার বিশেষজ্ঞদের অংশগ্রহণে আলোচনা অনুষ্ঠিত হয়।

প্রথমদিন শুক্রবার, ৩ জুলাই জুলাই-এ আলোচনায় অংশগ্রহণ করে স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রণালয়ের প্রোগ্রাম ম্যানেজার ডা. মুহম্মদ শরীফুল ইসলাম এই সময়ে সরকারের গৃহীত বিভিন্ন কর্মকান্ড তুলে ধরেন। পাশাপাশি, করোনা পরবর্তীকালে আরো যে সব কাজ সরকারের পরিকল্পনায় আছে তা বর্ণনা করেন। বাংলাদেশ ইসিডি নেটওয়ার্কের সহ-সভাপতি মাহমুদা আকতার প্রারম্ভিক শিশু বিকাশে সরকারের সাথে বাংলাদেশ ইসিডি নেটওর্য়াক যেসব প্রকল্প বাস্তবায়ন করছে তার বিভিন্ন আঙ্গিক বর্ণনা করেন। এবং এই সময়ে সরকারি এবং বেসরকারি সংগঠনের কাজের সমন্বয়ের ওপর জোর দেন। আইসিডিডিআর’বির গবেষক ডা. জেনা হামাদানী করোনাকালীন সময়ে বাবা-মায়েদের শিশুদের সাথে সহনশীল আচরণের অনুরোধ করেন। তিনি আরো বলেন এই সময় বিরূপ আচরণ শিশুদের মানসিক বিকাশে দীর্ঘমেয়াদি প্রভাব রাখবে।

দ্বিতীয়দিন শনিবার, ৪ জুলাই জুলাই-এ আলোচনায় অংশগ্রহণ করে ইউনিসেফের শিক্ষা বিশেষজ্ঞ জনাব মোহাম্মদ মহসিন বলেন, এই সময় শিশুদের সব শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধ থাকায় ইউনিসেফ সরকারের সাথে সম্পৃক্ত হয়ে আপৎকালীন সময়ে শিশুদের শিক্ষার সুযোগ চালু রাখার জন্য স্বল্পমেয়াদে এবং দীর্ঘমেয়াদে কি করা যায় তা নিয়ে কাজ করছে। সিসিমপুরের নির্বাহী পরিচালক জনাব মোহাম্মদ শাহ আলম তুলে ধরেন তাদের কর্মকান্ড। তারা এই সময়ে শিশুদের সচেতন করতে ৩০ মিনিটের অনুষ্ঠান তৈরি করেছেন যা দেশের ৮টি টিভি চ্যানেলে নিয়মিত প্রচার হচ্ছে। সব শেষে সিনারগোস বাংলাদেশের টিম লিডার এষা হুসেন প্রারম্ভিক শিশু বিকাশে আরো গুরুত্বসহকারে কাজ চালানোর তাগিদ দেন। তিনি আরো বলেন, বাংলাদেশের এসডিজি লক্ষ্যমাত্রা অর্জনের জন্য শিশুর বিকাশ ও নিরাপত্তায় সরকার এবং বেসরকারি সংগঠনকে একযোগে কাজ চালিয়ে যেতে হবে।
নাজমুস সাকিবের প্রযোজনায় এ দুটি টক-শোর সঞ্চালক হিসেবে ছিলেন ডা. ফাইজা রাহলা।