কথাসাহিত্যিক রাবেয়া খাতুন আর নেই, রাষ্ট্রপতি, প্রধানমন্ত্রী, পররাষ্ট্রমন্ত্রীর শোক প্রকাশ

প্রকাশিত: ৭:৩৯ অপরাহ্ণ, জানুয়ারি ৩, ২০২১ | আপডেট: ৭:৩৯:অপরাহ্ণ, জানুয়ারি ৩, ২০২১

লন্ডন টাইমস নিউজ।প্রখ্যাত কথাসাহিত্যিক রাবেয়া খাতুন আর নেই। আজ বিকেলে তিনি মৃত্যুবরণ করেছেন (ইন্না লিল্লাহি…রাজিউন)।
তার বয়স হয়েছিল ৮৬ বছর। স্বাধীনতা পুরস্কার, একুশে পদক ও বাংলা একাডেমিসহ অসংখ্য পুরস্কার ও সম্মাননায় ভূষিত সাহিত্যিক রাবেয়া খাতুন বেশ কিছুদিন ধরে বার্ধক্যজনিত নানা রোগে ভুগছিলেন।
রাবেয়া খাতুন ১৯৩৫ সালে বিক্রমপুরে জন্মগ্রহণ করেন। লেখালেখির পাশাপাশি শিক্ষকতা এবং সাংবাদিকতাও করেছেন তিনি। তার স্বামী প্রয়াত এটিএম ফজলুল হক ছিলেন দেশের চলচ্চিত্র বিষয়ক প্রথম পত্রিকা সিনেমার সম্পাদক ও চিত্রপরিচালক। বাংলাদেশের প্রথম শিশুতোষ চলচ্চিত্র ‘প্রেসিডেন্ট’ এর পরিচালকও তিনি। তিনি মিডিয়া ব্যক্তিত্ব ও চ্যানেল আইয়ের ব্যবস্থাপনা পরিচালক ফরিদুর রেজা সাগরের মা।

স্বাধীনতা পুরস্কার ও একুশে পদকপ্রাপ্ত কথাসাহিত্যিক রাবেয়া খাতুনের মৃত্যুতে গভীর শোক প্রকাশ করেছেন রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এবং পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড একে আব্দুল মোমেন।

রাষ্ট্রপতি তার শোকবার্তায় বলেন, ‘রাবেয়া খাতুনের মৃত্যু দেশের সাহিত্য অঙ্গনের জন্য এক অপূরণীয় ক্ষতি। বাংলা সাহিত্যের প্রসারে তাঁর অবদান চিরস্মরণীয় হয়ে থাকবে।’

শোকবার্তায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, ‘রাবেয়া খাতুন তাঁর সাহিত্যকর্ম ও সৃজনশীলতার জন্য স্মরণীয় হয়ে থাকবেন।’

রাবেয়া খাতুনের রুহের মাগফিরাত কামনার পাশাপাশি তাঁর শোকসন্তপ্ত পরিবারের প্রতি গভীর সমবেদনা জানান রাষ্ট্রপতি ও প্রধানমন্ত্রী।

এছাড়া রাবেয়া খাতুনের মৃত্যুতে গভীর শোক প্রকাশ করেছেন পরিকল্পনা মন্ত্রী এম এ মান্নান।

কথাসাহিত্যিক রাবেয়া খাতুনের মৃত্যুতে গভীর শোক ও দু:খ প্রকাশ করেছেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. এ. কে. আব্দুল মোমেন।

এক শোক বার্তায় পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, মহিয়সী নারী রাবেয়া খাতুনের সৃজনশীল সাহিত্যকর্ম বাঙালি জাতি চিরকাল স্মরণ রাখবে।

ড. মোমেন মরহুমার বিদেহী আত্মার মাগফিরাত কামনা করেন এবং শোকসন্তপ্ত  পরিবারের প্রতি গভীর সমবেদনা জ্ঞাপন করেন।

আজ রবিবার (৩ জানুয়ারি) বিকেল ৫টার দিকে রাজধানীর গুলশানে নিজ বাড়িতে মারা যান তিনি (ইন্নালিল্লাহি…রাজিউন)। মৃত্যুকালে তাঁর বয়স হয়েছিল ৮৫ বছর। সোমবার দুপুর ১২টায় সর্বস্তরের শ্রদ্ধা নিবেদনের জন্য বাংলা একাডেমি প্রাঙ্গণে রাবেয়া খাতুনের মরদেহ রাখা হবে। এরপর দুপুর ২টায় চ্যানেল আই প্রাঙ্গণে জানাজা শেষে বনানী কবরস্থানে দাফন করা হবে তাঁকে।