কাতার এয়ারওয়েজে যাওয়া ১২৫ বাংলাদেশী যাত্রীকে ফিরিয়ে দিল ইটালি।।করোনা লুকিয়ে বিদেশ যাত্রায় ভাবমূর্তি নষ্ট হচ্ছে।।ওবায়দুল কাদের

প্রকাশিত: ১:৪১ অপরাহ্ণ, জুলাই ৮, ২০২০ | আপডেট: ১:৪১:অপরাহ্ণ, জুলাই ৮, ২০২০

লন্ডন টাইমস ডিজিটাল।কাতার এয়ারওয়েজের একটি ফ্লাইটে করে ইতালি যাওয়া ১২৫ বাংলাদেশিকে বিমান থেকে নামতে দেয়া হয়নি। তাদের ওই বিমানেই ফেরত পাঠানো হয়েছে।
বুধবার স্থানীয় সময় দুপুর ১টার দিকে ফিউমিসিনো বিমানবন্দরে ওই বিমানটি অবতরণ করে। ইতালির জাতীয় দৈনিক ইল মেসসাজ্জেরোর অনলাইন সংস্করণের এক প্রতিবেদনে বলা হয়, ওই বাংলাদেশি যাত্রীদের ইতালিতে প্রবেশ করতে দেয়া হয়নি। তাদের সেদিনই একটি ফ্লাইটে কাতার ফেরত পাঠানো হয়েছে।
মঙ্গলবার বাংলাদেশ ফেরত যাত্রীদের শরীরে করোনা ভাইরাসের উপস্থিতি শনাক্ত করে ইতালি কর্তৃপক্ষ। এরপর বাংলাদেশের সঙ্গে এক সপ্তাহের জন্য সকল ফ্লাইট বাতিল ঘোষণা করে দেশটির স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়।
বাংলাদেশের সঙ্গে ফ্লাইট বাতিল করলেও কাতার থেকে যাওয়া ফ্লাইট চালু রেখেছে ইতালি।তাই দোহা থেকে যাওয়া ওই ফ্লাইটটির বাংলাদেশি যাত্রীদের ইতালি প্রবেশে কোনো বাধা থাকার কথা ছিল না। কিন্তু ইতালির স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়কে উদ্ধৃত করে ইল মাসসাজ্জেরো জানায়, ওই ১২৫ বাংলাদেশি ইতালিতে প্রবেশ করতে পারবেন না। এমনকি তাদের বিমান থেকেও নামতে দেয়া হবে না। কেবলমাত্র জরুরি স্বাস্থ্যসেবার প্রয়োজন এমন যাত্রীরা নামতে পারবেন। ওই বিমানেই স্থানীয় সময় বিকালে তাদের ফেরত পাঠানো হবে।

করোনা লুকিয়ে বিদেশ যাত্রায় দেশের ভাবমূর্তি নষ্ট হচ্ছে: ওবায়দুল কাদের

সত্য গোপন করে ‘করোনা নেগেটিভ’ সনদ নিয়ে বিদেশ যাওয়ার তীব্র প্রতিযোগিতায় দেশের ভাবমূর্তি নষ্ট হচ্ছে বলে মন্তব্য করেছেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের।

তিনি বলেন, আমাদের কিছু মানুষ সংক্রমণ লুকিয়ে তথ্য গোপন করে চলাফেরা করছেন। শুধু তাই নয়; করোনা নেগেটিভ সনদ নিয়ে বিদেশে গিয়ে এয়ারপোর্টে পজিটিভ হিসেবে চিহ্নিত হচ্ছে। বিদেশে যাওয়ার তীব্র প্রতিযোগিতা এবং সত্য গোপন রাখায় বিদেশে দেশের ভাবমূর্তি নষ্ট হচ্ছে।

বুধবার দুপুরে জাতীয় সংসদ ভবন এলাকার সরকারি বাসভবন থেকে অনলাইন সংবাদ সম্মেলনে তিনি এ সব কথা বলেন।

সম্প্রতি বাংলাদেশ থেকে ইতালিতে যাওয়া ৩৯ বাংলাদেশির শরীরে করোনাভাইরাস শনাক্ত হওয়ার পর এক সপ্তাহ সব ধরনের ফ্লাইট স্থগিত করেছে দেশটির সরকার। সংবাদ সম্মেলনে ওবায়দুল কাদের সবার প্রতি আহ্বান জানিয়ে বলেন, দয়া করে কেউ এমন কাজ করবেন না। সংক্রমণ লুকাবেন না। লক্ষণ দেখা দিলে আইসোলেশনে থাকুন, চিকিৎসা নিন। আপনার তথ্য গোপনের সঙ্গে দেশের ইমেজ, লাখ লাখ প্রবাসীর ভাগ্য ও আপনার ভবিষ্যৎও অনিশ্চয়তায় আবর্তিত হবে।

সেতুমন্ত্রী আরও বলেন, করোনার নমুনা পরীক্ষা সনদ, প্লাজমা ডোনেশনসহ বিভিন্ন ক্ষেত্রকে ঘিরে এ সংকটে একশ্রেণির অসাধু চক্র প্রতারণার আশ্রয় নিচ্ছে। মানুষ ঠকাচ্ছে। সরকার এ সব প্রতারণা ও অনিয়মের বিরুদ্ধে অত্যন্ত কঠোর অবস্থানে। এ ধরনের প্রতারণা মানুষের অসহায়ত্ব নিয়ে নির্মম বাণিজ্য ছাড়া আর কিছু নয়।

তিনি বলেন, ঈদের সংক্রমণ বিস্তার রোধে আমাদের সবাইকে সচেতনতার জনযোদ্ধা হিসেবে কাজ করতে হবে। সমাগম এড়িয়ে চলতে হবে নিজের ও পরিবারের স্বার্থে। পশুর হাট, বাস, লঞ্চ টার্মিনাল, রেলস্টেশন, ফেরিঘাট, শপিংমল, কাঁচাবাজারসহ প্রতিটি স্থানে পারস্পরিক দূরত্ব বজায় রেখে, মাস্ক পরে, স্বাস্থ্যবিধি মেনে সুরক্ষা বলয় তৈরি করতে হবে।