করোনার ৪ হাজার নতুন ধরন, আসছে ভ্যাকসিনের মিশ্র ডোজ

প্রকাশিত: ৭:৩৪ অপরাহ্ণ, ফেব্রুয়ারি ৪, ২০২১ | আপডেট: ৭:৩৪:অপরাহ্ণ, ফেব্রুয়ারি ৪, ২০২১

রয়টার্স। বিশ্বের বিভিন্ন দেশে নভেল করোনাভাইরাসের প্রায় চার হাজার নতুন ধরন শনাক্ত করা হয়েছে। দ্রুত সংক্রমণক্ষম এইসব ধরন নিয়ে উদ্বেগের মুখে ভ্যাকসিন উন্নয়নে উদ্যোগী হয়েছেন গবেষকরা।

বৃহস্পতিবার (৪ ফেব্রুয়ারি) যুক্তরাজ্য জানিয়েছে, তারা ফাইজার এবং অ্যাস্ট্রাজেনেকার করোনা ভ্যাকসিনের মিশ্র ডোজ তৈরির চেষ্টা শুরু করেছে।

এর আগে যুক্তরাজ্য, দক্ষিণ আফ্রিকা এবং ব্রাজিলের করোনার নতুন ধরনসহ বিশ্বজুড়ে এমন হাজার হাজার ধরন শনাক্ত হয়েছে। যেগুলো মূল করোনাভাইরাসের চেয়ে আরও দ্রুতগতিতে ছড়ায় বলে প্রমাণ হয়েছে।

এ ব্যাপারে যুক্তরাজ্যের ভ্যাকসিন বিতরণ বিষয়ক মন্ত্রী নাদিম জাহাওয়ি স্কাই নিউজকে বলেছেন, বতর্মানে কোভিড-১৯ মোকাবিলায় যে সমস্ত ভ্যাকসিন আছে সেগুলো নতুন ধরন মোকাবিলায় কাজ করবে না এমন সম্ভাবনা খুবই কম।

বিশেষ করে মারাত্মক অসুস্থতা কিংবা হাসপাতালে ভর্তি হওয়ার মতো অবস্থায় করোনাভাইরাসের নতুন ধরনের বিরুদ্ধে ভ্যাকসিন কার্যকর না হওয়ার কোনো সম্ভাবনা নেই, বলেছেন ওই ব্রিটিশ মন্ত্রী।

তারপরও ভ্যাকসিন উৎপাদনকারী সব প্রতিষ্ঠান ফাইজার-বায়োএনটেক, মডার্না, অক্সফোর্ড-অ্যাস্ট্রাজেনেকা ও অন্যান্যরা তাদের ভ্যাকসিন আরও উন্নয়ন ঘটানো যায় কিনা তা নিয়ে কাজ করছে। যেনো করোনার যে কোনো ধরন মোকাবেলায় সক্ষম একটি ভ্যাকসিন প্রস্তুত রাখা যায়।

২০২০ সালের শেষদিকে ভ্যাকসিন যখন মহামারিমুক্তির আশা জাগাতে শুরু করেছিল ঠিক তখনই যুক্তরাজ্যে করোনার একটি পরিবর্তিত ধরন দ্রুত ছড়িয়ে পড়ার খবর বিশ্বে নতুন করে উদ্বেগের জন্ম দেয়। এর কিছুদিনের মধ্যেই আরও কয়েকটি দেশে করোনাভাইরাসের নানান ধরন শনাক্ত হতে হতে এখন বিশ্বব্যাপী সংখ্যা প্রায় চার হাজারে দাঁড়িয়েছে।

রূপ বদলে ভাইরাস কখনও কখনও আগের চেয়ে ভয়ঙ্কর হয়ে উঠতে পারে, কখনও আবার সংক্রমণের ক্ষমতা কমে দুর্বল, এমনকি নিশ্চিহ্ন হয়েও যেতে পারে। তবে নতুন ধরনগুলো দ্রুত ছড়াতে থাকলে স্বাভাবিকভাবেই হাসপাতালগুলোতে চাপ বাড়বে।

তাই এই ধরনগুলো মোকাবিলায় প্রস্তুতি নিয়ে রাখা হচ্ছে, যেনো আগামী শরৎ বা তার পরবর্তী সময়ে ভাইরাস যে ধরনের চ্যালেঞ্জই সৃষ্টি করুক না কেন তা প্রতিহত করা যায় এবং নতুন ভ্যাকসিন তৈরি করা যায় – বলেছেন যুক্তরাজ্যের ভ্যাকসিন বিতরণ বিষয়ক মন্ত্রী নাদিম জাহাওয়ি।

এ ব্যাপারে ইংল্যান্ডের প্রফেসর জোনাথন ভান-টাম বলছেন, ভ্যাকসিনের মিশ্রণে তৈরি ডোজ দিয়ে মানুষের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ানো যেতে পারে।