ঘুষ দিতে অস্বীকার করায় আইনজীবিকে পিটিয়ে আহত করলেন পেশকার

প্রকাশিত: ৩:৩৪ অপরাহ্ণ, জুলাই ১৫, ২০২০ | আপডেট: ৩:৩৪:অপরাহ্ণ, জুলাই ১৫, ২০২০

ভোলা জেলা সংবাদদাতা। ভোলার চরফ্যাশনে আদালতের পেশকারকে দাবীকৃত ঘুষ দিতে অস্বীকার করায় হারুন অর রশিদ ফরাজী নামের এক আইনজীবিকে পিটিয়ে আহত করার অভিযোগ পাওয়া গেছে। মঙ্গলবার দুপুর আড়াইটায় বিচারিক কার্যক্রম শেষে চরফ্যাশন আদালতে এ ঘটনা ঘটে। আইনজীবী সহকারীরা আহত হারুন অর রশিদ ফরাজীকে উদ্ধার করে চরফ্যাশন হাসপাতালে ভর্তি করেছেন। এই ঘটনায় মামলা দায়েরের প্রস্তুতি চলছে বলে আইনজীবীদের সুত্রে জানা গেছে।
চরফ্যাশন হাসপাতালে চিকিৎসাধীন আইনজীবি হারুন অর রশিদ ফরাজী অভিযোগ করেন, জিআর ১০৯ মামলার জামিন আবেদনের জন্য মামলার ফটো কপি নিতে তিনি তার সহকারী ইউসুফকে অতিরিক্ত জেলা ও দায়রা জজ আদালতের পেশকার কমল দে এর কাছে ২শ টাকা নিয়ে পাঠান। ওই সময় পেশকার কমল দে আরোও অতিরিক্ত তিন’শ টাকা দাবী করে মামলার নথির ফটোকপি দিতে অস্বীকৃতি জানান। তার ওই সহকারী ফিরে এলে তিনি নিজে গিয়ে পেশকার কমল দের কাছে বিষয়টি জানতে চান। এসময়ে আদালত সেরেস্তাদার আবুল কালাম আজাদ  নেতেৃত্বে ১০/১২ জন সংঘবদ্ধ হয়ে সেরেস্তাদার আবুল কালাম আজাদের রুমে তাকে আটকে  এলোপাথারী মারধর করে গুরুতর আহত করেন। তার চিৎকারে আইনজীবী সহকারীরা এগিয়ে এসে তাকে উদ্ধার করে চরফ্যাশন হাসপাতালে ভর্তি করেন। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একাধিক আইনজীবি সহকারী জানান, আদালতের কর্মচারীরা সিন্ডিকেটের মাধ্যমে মামলার বাদী বিবাদী পক্ষের নিকট থেকে নানান অযুহাতে টাকা হাতিয়ে নেয়। তাদের দাবীকৃত টাকা দিতে অস্বিকার করলে মামলার পক্ষদ্বয়কে হয়রানী করা হয়।
পেশকার কমল দে জানান, ঘুষ চাওয়ার কোন ঘটনা ঘটেনি। আইনজীবী হারুন অর রশিদের সহকারী এসে মামলার মুল নথি চাইলে আমি তা দেইনি। কিছুক্ষন পরে ওই আইনজীবী এসে আমার সাথে নথি না দেয়ার জন্য তর্কে জড়ান এবং আমাদের উপর হামলা করেন।
সেরেস্তাদার আবুল কালাম আজাদ জানান, আমার রুমেই পেশকার কমল দে’র সাথে মামলার নথি দেয়া নিয়ে তর্ক বিতর্ক হয়েছে, আমি আমার চেয়ারে বসা ছিলাম, এর বেশি আমার আর জানা নাই।
চরফ্যাশন আইনজীবী সমিতির সভাপতি এডভোকেট সালেহ উদ্দিন জানান, আইনজীবীর ওপর আদালতের স্টাফদের হামলার ঘটনায় আইনজীবী সমিতির সিদ্ধান্তে হামলাকারীদের বিরুদ্ধে চরফ্যাশন থানায় মামলা দায়েরের প্রস্তুতি নিয়েছে।
চরফ্যাশন থানার ওসি সামসুল আরেফিন জানান, এঘটনায় কোন অভিযোগ পাওয়া যায়নি। অভিযোগ পেলে আইনি ব্যবস্থা নেয়া হবে।তবে ঘটনাটা খুবই দুঃখজনক।