টেকনাফে র‌্যাবের সাথে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ খালেক গ্রুপের স্বশস্ত্র ডাকাত সদস্য নিহত

প্রকাশিত: ১১:২৭ পূর্বাহ্ণ, জুলাই ২২, ২০২০ | আপডেট: ১১:২৭:পূর্বাহ্ণ, জুলাই ২২, ২০২০

আজিজ উল্লাহ : টেকনাফে র‌্যাবের মাদক বিরোধী অভিযানে বন্দুক যুদ্ধের ঘটনায় খালেক গ্রুপের স্বশস্ত্র এক ডাকাত সদস্য নিহত হয়েছে। এসময় ঘটনাস্থল হতে অস্ত্র ও বুলেট উদ্ধার করা হয়েছে।

সুত্র জানায়, ২২জুলাই (বুধবার) ভোররাতের দিকে র‌্যাব-১৫ (সিপিসি-১) টেকনাফ ক্যাম্পের চৌকষ একটি আভিযানিক দল সড়ক ডাকাতির প্রস্তুতির খবর পেয়ে উপজেলার কেরুনতলী এলাকায় অভিযানে যায়। এসময় র‌্যাবের উপস্থিতি টের পেয়ে স্বশস্ত্র ডাকাত গ্রুপের সদস্যরা র‌্যাবকে লক্ষ্য করে গুলিবর্ষণ করলে র‌্যাবের দুই সদস্য আহত হলে সর্তক অবস্থান নেয়। এরপর র‌্যাব সদস্যরা সরকারী সম্পদ ও আত্নরক্ষার্থে কিছুক্ষণ পাল্টা গুলিবর্ষণ করলে হামলাকারীরা পাহাড়ের দিকে পালিয়ে যায়।

এরপর ঘটনাস্থল তল্লাশী করে অত্যাধুনিক ও দেশীয় ২টি পিস্তল, ৫ রাউন্ড তাঁজা বুলেটসহ নয়াপাড়া ২৬নং রোহিঙ্গা ক্যাম্পের এইচ ব্লকের মোঃ শফির পুত্র এবং ডাকাত খালেক গ্রুপের স্বশস্ত্র সদস্য মোঃ রশিদ (২৮) ওরফে গুলিবিদ্ধ অটো এবং র‌্যাব সদস্যদের উদ্ধার করে চিকিৎসার জন্য টেকনাফ উপজেলা সদর হাসপাতালে নিয়ে যায়। সেখান হতে গুলিবিদ্ধ ডাকাতকে উন্নত চিকিৎসার জন্য কক্সবাজার সদর হাসপাতালে রেফার করা হয়। সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় সে মারা যায়। প্রশাসনিক কার্য্যক্রম শেষে মৃতদেহ পোস্ট মর্টেমের জন্য মর্গে প্রেরণ করা হয়েছে।

এই বিষয়ে র‌্যাব-১৫ এর সহকারী পরিচালক (মিডিয়া) র‌্যাব-১৫ এর সহকারী পরিচালক এএসপি আব্দুল্লাহ আভিযানিক সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন , তদন্ত স্বাপেক্ষে উক্ত ঘটনায় সংশ্লিষ্টদের বিরুদ্ধে আইনী পদক্ষেপ গ্রহণের প্রক্রিয়া চলছে।

উল্লেখ্য,টেকনাফের শরণার্থী ক্যাম্প সমুহে আইন-শৃংখলা বাহিনীর মাদক ও অবৈধ অস্ত্রধারীদের বিরুদ্ধে সাঁড়াশি অভিযানের কারণে আত্নগোপনে থাকায় সালমান গ্রুপ, পুতিয়া গ্রুপ এবং খালেক গ্রুপের লোকজন বিখিভন্ন বাহিনীর সাথে সখ্যতার দোহাই দিয়ে সাধারণ রোহিঙ্গা এবং পার্শ্ববর্তী জনসাধারণকে বিভিন্নভাবে হয়রানি করে আসছে বলে জনশ্রুতি রয়েছে।