পশ্চিম তীর থেকে ইহুদি বসতি সরানোর আদেশ ইসরায়েলি সুপ্রিম কোর্টের

প্রকাশিত: ৮:১৫ অপরাহ্ণ, আগস্ট ২৮, ২০২০ | আপডেট: ৮:১৫:অপরাহ্ণ, আগস্ট ২৮, ২০২০

রয়টার্স নিউজ।পশ্চিম তীরে ফিলিস্তিনিদের ব্যক্তি মালিকানাধীন জমি দখল করে যেসব ইহুদি বসতি গড়ে উঠেছে সেগুলো সরিয়ে ফেলার আদেশ দিয়েছেন ইসরায়েলের সর্বোচ্চ আদালত। ফিলিস্তিনিদের আবেদনের প্রেক্ষিতে ২০১৮ সালে ইসরায়েলের একটি জেলা আদালতের দেয়া রায়কে বাতিল করে গত বৃহস্পতিবার নতুন এই রায় দেন সুপ্রিম কোর্ট।

জেলা আদালত মিজপে ক্রামিম নামে ওই ঘাঁটিতে ইহুদি বসতি স্থাপনকারীদের আইনগত অধিকার দেয়ার সময় তখন তাদের জানা ছিল না যে, মূল মানচিত্রে এসব জমি ফিলিস্তিনিদের হিসেবে দেখানো হয়েছে। জর্ডান উপত্যকার একটি পাহাড়ের চূড়ার ওই জায়গায় ২০ বছর ধরে বসতি স্থাপন করে রয়েছে ৪০টি ইহুদি পরিবার। তাদের বেশিরভাগই ফিলিস্তিনিদের মালিকানাধীন জায়গায় বসবাস করছেন।ইহুদি পরিবারগুলোর দাবি, তাদের সেখানে বাস করার অনুমতি দিয়েছে ইসরায়েলি কর্তৃপক্ষ। তবে দেশটির সুপ্রিম কোর্ট বলেছেন, ইসরায়েলি কর্তৃপক্ষ কাজটি অন্যায়ভাবে করেছে এবং তারা ফিলিস্তিনিদের ন্যায্য মালিকানা উপেক্ষা করেছে। ইহুদি পরিবারগুলোর সমস্যার কথা বিবেচনা করে তাদের অন্যত্র সরে যেতে ৩৬ মাস (তিন বছর) মধ্যে সময় দিয়েছেন আদালত।

১৯৬৭ সালের যুদ্ধে দখল করা ফিলিস্তিনি ভূমিতে ইসরায়েলিদের বসতি স্থাপনের বিরোধিতা করে বিশ্বের বেশিরভাগ দেশে। তবে এ কাজে ইসরায়েলকে সমর্থন করছে যুক্তরাষ্ট্র।

এদিকে ফিলিস্তিনিরা পশ্চিম তীরকে তাদের ভবিষ্যৎ রাষ্ট্রের অংশ হিসেবে চায়। সেখানে প্রায় ৩০ লাখ ফিলিস্তিনির বাস। তাদের মধ্যেই নতুন বসতি গড়ে তুলেছে প্রায় সাড়ে চার লাখ ইসরায়েলি।