আগামী বছর ঢাকা সফর করবেন মোদি-শুনুন লন্ডন রেডিও পডকাষ্ট

প্রকাশিত: ৭:৪৩ অপরাহ্ণ, সেপ্টেম্বর ২৯, ২০২০ | আপডেট: ৭:৪৩:অপরাহ্ণ, সেপ্টেম্বর ২৯, ২০২০

লন্ডন রেডিও পডকাষ্ট।২৮ দফা যৌথ ঘোষণায় শেষ হয়েছে বাংলাদেশ-ভারত পররাষ্ট্রমন্ত্রী পর্যায়ের সর্বোচ্চ ফোরাম জেসিসি’র বৈঠক। ওই ঘোষণায় জানানো হয়েছে, ২০২১ সালে ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি ঢাকা সফর করতে পারেন। ২০২০ সালের মার্চে তার পূর্ব নির্ধারিত যে সফর ছিল সেটি বৈশ্বিক সঙ্কট করোনা কারণে শেষ সময়ে এসে স্থগিত করতে হয়েছে। ওই সফরের তারিখ পূণঃনির্ধারণে উভয় পক্ষ কাজ করছে উল্লেখ করে জেসিসি বৈঠকের যৌথ ঘোষণায় বলা হয়, জেসিসি বৈঠকে প্রধানমন্ত্রী মোদির স্থগিত হওয়া ঢাকা সফরটি পূণনির্ধারণের বিষয়ে দৃঢ় আশাবাদ ব্যক্ত করা হয়।

এটি ঘটনাচক্রে (২০২১ সালে) বাংলাদেশের স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী এবং বাংলাদেশ-ভারত কূটনৈতিক সম্পর্কের ৫০ বছরপূর্তির সঙ্গে মিলে যায়। যৌথ ঘোষণা মতে, দুই দেশের প্রতিনিধিরা আগামী ডিসেম্বরে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির মধ্যকার ভার্চ্যুয়াল বৈঠক আয়োজনের সিদ্ধান্তকে স্বাগত জানান। সামিট বা শীর্ষ পর্যায়ের ওই বৈঠকে কি আলোচনা বা চুক্তি হবে তা এখনও ঠিক হয়নি জানিয়ে জেসিসি বৈঠক পরবর্তী সংবাদ ব্রিফিংয়ে পররাষ্ট্র মন্ত্রী ড. একে আবদুল মোমেন বলেন, ডিসেম্বর-২০২০-এ দুই প্রধানমন্ত্রীর মধ্যকার ভার্চুয়াল বৈঠক আয়োজনে আমরা উভয়ে নীতিগতভাবে সম্মত হয়েছি। এখন বাকী প্রস্তুতি সম্পন্ন হবে।

‘স্বৈরশাসক’ লুকাশেঙ্কোর বিরুদ্ধে ব্রিটেন-কানাডার নিষেধাজ্ঞা

নির্বাচনে কারচুপি এবং বিক্ষোভকারীদের ওপর অন্যায়ভাবে বলপ্রয়োগের অভিযোগে বেলারুশের প্রেসিডেন্ট আলেক্সান্ডার লুকাশেঙ্কো, তার ছেলে এবং দেশটির বেশ কয়েকজন জ্যেষ্ঠ সরকারি কর্মকর্তার ওপর নিষেধাজ্ঞা জারি করেছে ব্রিটেন ও কানাডা। রাশিয়া সমর্থিত বেলারুশ নেতাদের বিরুদ্ধে পশ্চিমা দেশগুলোর পক্ষ থেকে এটাই প্রথম নিষেধাজ্ঞার ঘটনা।

বার্তা সংস্থা রয়টার্স জানিয়েছে, লুকাশেঙ্কো, তার ছেলে ভিক্টর, প্রেসিডেন্টের চিফ অব স্টাফ, স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীসহ মোট সাত বেলারুশিয়ান নেতা ও কর্মকর্তার ওপর ভ্রমণ নিষেধাজ্ঞা জারি এবং তাদের সম্পদ বাজেয়াপ্তের ঘোষণা দিয়েছে ব্রিটেন। কানাডা নিষেধাজ্ঞা দিয়েছে বেলারুশের প্রেসিডেন্টসহ ১০ জনের বিরুদ্ধে।

ব্রিটিশ পররাষ্ট্রমন্ত্রী ডমিনিক রাব বলেছেন, ভোট দুর্নীতি এবং মানবাধিকার লঙ্ঘনের জন্য লুকাশেঙ্কোকে অবশ্যই মূল্য চুকাতে হবে। তিনি বলেন, আমরা যে ধরনের মানবাধিকার লঙ্ঘন দেখছি এবং নির্বাচনে প্রতারণামূলক পদ্ধতি প্রয়োগ করা হয়েছে, অবশ্যই তার মূল্য দিতে হবে।

কানাডার পররাষ্ট্রমন্ত্রী ফ্রাঙ্কোইস-ফিলিপ্পে চ্যাম্পে বলেছেন, বেলারুশ সরকার নিয়মিত মানবাধিকার লঙ্ঘন করবে এবং বিরোধী দলগুলোর সঙ্গে সংকট সমাধানে আলোচনার কোনও লক্ষণ দেখাবে না, এ অবস্থায় কানাডা চুপচাপ দাঁড়িয়ে থাকতে পারে না।

গত ৯ আগস্টের বিতর্কিত নির্বাচনে টানা ২৬ বছর ধরে ক্ষমতায় থাকা লুকাশেঙ্কোকে আবারও বিপুল ভোটে জয়ী ঘোষণার পর থেকেই উত্তপ্ত বেলারুশের পরিস্থিতি। নির্বাচনে ব্যাপক দুর্নীতির অভিযোগ তুলে ‘ইউরোপের শেষ স্বৈরশাসকের’ পদত্যাগ দাবিতে রাস্তায় বিক্ষোভ করছেন হাজার হাজার মানুষ।

কিন্তু, এগুলো পশ্চিমাদের ষড়যন্ত্র উল্লেখ করে কঠোর অবস্থান নিয়েছে লুকাশেঙ্কো সরকার। এ পর্যন্ত ১২ হাজারের বেশি বিক্ষোভকারীকে আটক করা হয়েছে বলে জানা গেছে। বিরোধী দলের শীর্ষ নেতাদের আটক অথবা দেশ ছাড়তে বাধ্য করা হয়েছে বলেও অভিযোগ রয়েছে।

ইউরোপীয় ইউনিয়ন জানিয়েছে, তারা বেলারুশ সরকারের কর্মকর্তাদের ওপর নিষেধাজ্ঞা আরোপ করবে। তবে সেই তালিকা এখনও চূড়ান্ত হয়নি। বেলারুশের শীর্ষ নেতৃত্বের বিরুদ্ধে নিষেধাজ্ঞা দেয়ার পরিকল্পনা রয়েছে যুক্তরাষ্ট্রেরও।

https://overcast.fm/itunes1531351176/london-radio